মনোবিজ্ঞান বিভাগ || মোহাম্মদপুর কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যলয় কলেজ
 

মনোবিজ্ঞান বিভাগ || মোহাম্মদপুর কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যলয় কলেজ

১৯৬৯ সালে স্বাধীনতা অর্জনের পূর্বেই স্থাপিত হয় মোহাম্মদপুর কলেজ।অত্র এলাকায় মোহাম্মদপুর গার্লস-কলেজ,মোহাম্মদপুর কলেজ এবং ধানমন্ডি সেন্ট্রাল কলেজ ছিল ।১৯৭৪ সালে সরকার একটি উচ্চ-ক্ষমতাসম্পন্ন কমিটি গঠন করে,কমিটির ণেতৃত্বে ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন উপাচার্য। এই কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে তিনটি কলেজকে একত্রীকরণ করে ১৯৭৬ সালে মোহাম্মদপুর সেন্ট্রাল কলেজ নামকরণ করা হয়। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে কলেজটি একাদশ-দ্বাদশ ও স্নাতক(পাশ) শ্রেণীতে ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি করে আসছে।
১৯৯৪-১৯৯৫ শিক্ষাবর্ষ থেকে উচ্চ মাধ্যমিকে মনোবিজ্ঞান বিষয়টি অন্তর্ভূক্ত হয়। পরবর্তীতে অত্র কলেজে মনোবিজ্ঞান বিষয়ে বি,এস,সি (অনার্স) এম,এস,সি ১ম পর্ব এবং এম,এস,সি শেষ পর্ব কোর্স চালু করা হয়।

‘মনোবিজ্ঞান’ বিজ্ঞানের এমন একটি শাখা যেখানে মানব আচরণ পর্যবেক্ষণ, বিশ্লেষণ, আচরণের কারণ অনুসন্ধান এবং সমাজ প্রত্যাশিত আচরণ বিষয়ক অনুধ্যান পরিচালনা করা হয় । যেহেতু মনোবিজ্ঞান মানব বিকাশের বিভিন্ন পর্যায়ে শারীরিক,মানসিক,সামাজিক,আবেগিক ও নৈতিক বিকাশের ধারা সম্পর্কে অনুধ্যান করে তাই বিভিন্ন বয়সে এবং বিভিন্ন পরিবেশ-পর¯ি’তিতে মানুষ কী ধরনের আচরণ করতে পারে বা কী ধরনের আচরণ করা উচিৎ তা মনোবিজ্ঞানীরাই সার্বিকভাবে অনুধাবন করতে পারে।সেই বিবেচনায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ সকল ধরনের প্রতিষ্ঠানে প্রশিক্ষিত মনোবিজ্ঞানী নিয়োগ এখন সময়ের দাবি। আর দক্ষ মনোবিজ্ঞানী তৈরীর জন্য সবার আগে প্রয়োজন স্কুল-কলেজ পর্যায়ে মনোবিজ্ঞানকে চতুর্থ বিষয় হিসেবে নয় বরং আবশ্যিক বিষয় হিসেবে মনোবিজ্ঞান বিষয়টি অন্তর্ভূক্ত করতে হবে এবং স্বতস্ফূর্তভাবে পছন্দ করার এবং পাঠ্য বিষয় হিসেবে বেছে নেবার সুযোগ সৃষ্টি করতে হবে । উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে মনোবিজ্ঞান পাঠে শিক্ষার্থীরা যতবেশী উৎসাহিত হবে , দেশে প্রয়োজনীয় সংখ্যক দক্ষ মনোবিজ্ঞানী তৈরি করা তত সহজ হবে – যা প্রকারান্তরে সমাজ ও রাষ্ট্রের উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে কাঙ্খিত অবদান রাখতে সক্ষম হবে।


 

সভাপতি

সভাপতি

এ্যাড. জাহাঙ্গীর কবির নানক

অধ্যক্ষ

অধ্যক্ষ

সৈয়দ জাফর আলী,
বি সি এস (শিক্ষা)